বিলোনীয়ায় জালিয়াত চক্র সক্রিয় অধিগ্রহনের টাকা পেতে ভূয়া দলিল তৈরি

স্টাফ রিপোর্টার : ভারত সীমান্তবর্তী পরশুরাম উপজেলার বিলোনীয়া স্থল বন্দর এলাকায় অধিগ্রহণকৃত জমির মালিকানা দাবী করতে ভূয়া দলিল তৈরি করেছে সংঘবদ্ধ একটি প্রতারক চক্র। অধিগ্রহনের ক্ষতিপূরণের টাকার ভাগ-বাটোয়ারা পেতে আদালতে মামলাও দিয়েছে। এতে করে ভূমি মালিকরা অসহায় হয়ে আদালতের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। চলমান ওই মামলা নিষ্পত্তি করতে জমির মালিকদের কাছে চাঁদা দাবী করছে ওই চক্রের সদস্যরা।

বিভিন্ন সূত্র ও ক্ষতিগ্রস্থরা জানিয়েছেন, ১৯৬৭ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি তারিখের ১৪৭৮নং খরিদা কবলার কথা উল্লেখ করে ১৯৬১ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি কবলায় স্বাক্ষর জাল করে ১৩ শতক ভূমির মালিকানা দাবী করে আদালতে দলিল দাখিল করেন মো: ইসমাইল। খোঁজ নিয়ে নোয়াখালী জেলা রেজিষ্ট্রার রেকর্ডরুমে ওই দলিলের কোন রকম অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। ১৯৬৩সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ১৪৭০নং অপর এক জাল দলিল দাখিল করে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়। বর্তমানে ওই জায়গায় মায়মুনা খাতুন গংদের দখলীয় একটি দালান ঘর, একটি পুকুর ও একটি পাকাঘর রয়েছে।

জানা গেছে, সম্প্রতি উল্লেখিত জায়গা বিলোনীয়া স্থল বন্দরের জন্য অধিগ্রহণ করা হয়। ১৩শতক সম্পত্তির ক্ষতিপূরণ বাবদ ২০ লাখ ৪৪ হাজার ৭শ ৭০ টাকা ধার্য্য সহ অপরাপর সম্পত্তির জন্য ৪৮ লাখ ৭৮ হাজার ৮শ ১৭ টাকা গত ১৬ সেপ্টেম্বর চেক প্রদান করা হয়েছে। পরশুরাম সহকারি জজ আদালতে মামলা দায়ের করলেও বিচারক অধিগ্রহনের ওই টাকার উপর কোনরকম অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করে নাই।

মামলার বিবাদী পক্ষের আইনজীবী আকরামুজ্জমান ফেনীর সময় কে জানান, আদালতে মঙ্গলবার এ মামলার শুনানী হয়েছে। শুনানীতে বাদীপক্ষের দাখিলকৃত দলিলটি ভূয়া হিসেবে যথেষ্ঠ প্রমাণাদী উপস্থাপন করা হয়েছে। এই চক্র নামে-বেনামে লোকদের নাম ব্যবহার করে ভূয়া দলিল তৈরি করে আদালতে মামলা দায়ের করে সাধারণ মানুষকে হয়রানী করছে। তাদের আইনের আওতায় আনার জন্য আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *