অনলাইন ডেস্ক নিউজ

ক্যান্সারে আক্রান্ত এক ব্যবসায়ীর ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার শিকারপুর গ্রামের আবদুর ছালাম বাবুর্চির ছেলে মো: মামুন রানা (২৮) কে আদালত কারাগারে গ্রেরণ করে। পরশুরাম উপজেলার শামিনুর রহমানের ব্যবসায়ীক টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামুন রানার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। টাকা আত্মসাতের অভিযোগে আদালত তাকে কারাগারে প্রেরণ করে।
এজাহার সূত্রে জানা যায়, ক্যান্সারে আক্রান্ত এক ব্যবসায়ীর ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে। আদালত মামলাটি পরশুরাম মডেল থানায় এফআইআর হিসেবে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করেন। ব্যবসায়ী শামিনুর রহমান ব্যবসায়িক কারণে মো: মামুন রানাকে ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা লভ্যাংশের বিনিময়ে প্রদান করা হয়। সম্প্রতি শামিনুর রহমান ক্যান্সারে আক্রান্ত হলে টাকাগুলো পুনরায় ফেরত চাইলে সে দিবে-দিচ্ছে বলে কাল ক্ষেপন করে। মামলার বাদি শামিনুর রহমান বলেন, ইতোপূর্বে ব্যবসায়ী কারণে দীর্ঘদিন কুমিল্লা অবস্থান করার সুবাদে আসামী ব্যবসায়ীক কাজে পুঁজি খাটানোর নিমিত্তে শামিনুর রহমানের কাছ থেকে ৬ মাসের জন্য ১ লাখ ২০ হাজার টাকা লভ্যাংশ প্রদানের শর্তে স্বাক্ষীদের উপস্থিতিতে ৮ লাখ টাকা নগদে গ্রহন করে। এছাড়া শামিনুর রহমানের অর্থ-সম্পদ জীবনের যা সঞ্চয় ছিল তা ক্যান্সারের ব্যয়বহুল চিকিৎসা করতে গিয়ে শেষ হয়ে গেছে। মামুনের কাছে ধার দেয়া ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা ফেরত আনতে গিয়ে সপরিবারে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। বর্তমানে টাকার অভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছি।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই তুষ্ট লাল বিশ্বাস জানান, প্রাথমিক তদন্তে মামলার সত্যতা পাওয়া গেছে। আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে ঘটনার সুনির্দিষ্ট তথ্য বেরিয়ে আসে।
পরশুরাম মডেল থানার ওসি মো: আবুল কাসেম চৌধুরী বলেন, গ্রেফতার মামুন রানা একজন প্রতারক শ্রেণির লোক। টাকা আত্মসাতের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য ৩ রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে।