অনলাইন ডেস্ক নিউজ

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দাগনভূঞা উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের সমাসপুর গ্রামে রবিবার দিবাগত রাতে যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম ইদন মিয়া (২৮) কে নিজদলীয় কর্মীরা পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে। ইদন মিয়ার অবস্থা আশংকাজনক বিধায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় ৫ জনকে আটক করেছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন যাবত যুবলীগ কর্মী, সোহেল, রুবেল, লাভলু, হাসান ও সজিবসহ এলাকায় ইভটিজিংসহ মাদকের সাথে সম্পৃক্ত বিধায় ইদন মিয়া প্রতিবাদ করে। তাতে ইদনের প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে স্থানীয় নিজদলীয় দুর্বৃত্তরা অতর্কিত হামলা চালায়। তারা ইদনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতরভাবে জখম করে। তার চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এল হামলাকারিরা পালিয়ে যায়। তাকে উদ্ধার করে দাগনভূঞা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভতি করে। অবস্থা অবনতি ঘটলে আশংকাজনক অবস্থায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল হাসাপাতালে নিয়ে যায়। এদিকে পুলিশ হামলায় জড়িত যুবলীগ কর্মী সোহেল, রুবেল, লাভলু, খুরশিদ, হাসান ও সজিবকে আটক করে। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে তার পরিবার জানান।
নজরুল ইসলাম ইদন উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের সমাসপুর গ্রামের দীন মোহাম্মদের ছেলে ও রাজাপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি।
স্থানীয় কোরাইশমুন্সি ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই সাইফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফেনীর সময় কে বলেন, আটককৃতরা এলাকার সকল অপকর্মের সাথে জড়িতের অভিযোগ রয়েছে। ইদনকে আহত করার ঘটনায় জড়িত আছে অভিযোগের আলোকে তাদেরকে আটক করা হয়েছে।