অনলাইন ডেস্ক নিউজ


আরিফ আজম : ফেনী শহরের তিনটি পরিবহন টার্মিনালের ইজারা দরপত্র জমার ধার্য্য তারিখ শেষ হয়েছে। দরপত্র বিক্রি ও জমার স্থান জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) কার্যালয় থাকলেও এ তিনটি কার্যালয় কোন দরপত্র পাওয়া যায়নি।
প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা গেছে, ফেনী পৌরসভার নিয়ন্ত্রণাধীন মহিপাল আন্ত:জেলা বাস টার্মিনাল, একাডেমি-বিরিঞ্চি এলাকায় ফেনী-ছাগলনাইয়া-ফুলগাজী ও পরশুরাম বাস টার্মিনাল এবং ফেনী-কুমিল্লা বাস স্ট্যান্ডটি আগামী ১ জানুয়ারি থেকে এক বছর মেয়াদে ইজারার নিমিত্তে টার্মিনাল ফি/ স্ট্যান্ড ফি/ সার্ভিস চার্জ আদায়ের জন্য দরপত্র আহবান করা হয়। ইজারা দরপত্র বিক্রির শেষ তারিখ ও সময় ছিল রবিবার অফিস চলাকালীন সময় পর্যন্ত। মহিপাল আন্ত:জেলা বাস টার্মিনালটি ইজারার জন্য কাঙ্খিত সরকারি মূল্য নির্ধারণ করা হয় ৩১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। একইভাবে একাডেমী এলাকার বাস টার্মিনাল ইজারার জন্য কাঙ্খিত সরকারি মূল্য ১৩ লাখ ৬৯ হাজার টাকা ও ফেনী-কুমিল্লা বাস স্ট্যান্ড ইজারার জন্য ১০ লাখ ৫৯ হাজার টাকা নির্ধারণ করে পৌর কর্তৃপক্ষ। ইজারা বিক্রি ও দাখিলের স্থান হিসেবে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালকের কার্যালয়, পুলিশ সুপারের কার্যালয়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়, ফেনী সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও ফেনী পৌরসভা কার্যালয় নির্ধারণ করা হয়। ওই দরপত্র অনুযায়ী দরপত্র বিকিকিনির কাজ শেষ হয়েছে রবিবার। গতকাল সোমবার ছিল জমা ও খোলার ধার্য্য তারিখ।
পৌরসভা কার্যালয় সূত্র জানায়, কার্যালয়ে স্থাপিত বাক্স থেকে গতকাল সোমবার খোলার তারিখে ৯টি দরপত্র সংগ্রহ করা হয়েছে।
সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) নুরের জামান চৌধুরী জানান, তার কার্যালয়ের নোটিশ বোর্ডে এ সংক্রান্ত একটি চিঠি টানানো হয়েছিল। তবে কোন দরপত্র তিনি পাননি।
সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মামুন জানান, সদর উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে কোন দাপ্তরিক কাগজপত্র ও দরপত্র পাঠানো হয়নি।
একই কথা বলেছেন জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) শ্যামল চন্দ্র বসাক। ফেনীর সময় কে তিনি বলেছেন, পৌরসভা থেকে দরপত্র সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র তিনি পাননি।
এ ব্যাপারে জানতে ফেনী পৌরসভার মেয়র হাজী আলাউদ্দিনকে বারবার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।