অনলাইন ডেস্ক নিউজ

ফেনী ইউনিভার্সিটি বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর সভাপতি আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম বলেছেন, শিক্ষা হচ্ছে আমাদের গড়ে ওঠার প্রধান সোপান। লক্ষ্যহীন পথে চলাচল করলে মানুষ হওয়া যাবেনা এবং তাই হাল না ছেড়ে আমাদের নির্দিষ্ট লক্ষ্যের অভিমুখে এগিয়ে যেতে হবে। যে সকল শিক্ষার্থী শিক্ষা ও জ্ঞান অর্জনে ফেনী ইউনিভার্সিটিকে বেছে নিয়েছে তা তাদেরকে মানুষের মত মানুষ করে গড়ে তুলতে সহযোগিতা করবে।
তিনি আরো বলেন, আমাদের সবদিক থেকে জীবন উপভোগ এবং সম্প্রসারিত করতে হবে। ফেনী ইউনিভার্সিটি পরিবার-প্রিয়জন বলে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে নবীন বরণ আয়োজন করে প্রিয়জনকে এ বিশেষ দিনটি উৎসর্গ করা হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। প্রায় ১৬ লক্ষ জনগোষ্ঠীর বসবাসের শহর ফেনীতে থেকেই ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে সে মহৎ উদ্দেশ্যে ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠার কথা তিনি স্মরণ করিয়ে দেন।
বুধবার বসন্তকালীন সেমিস্টারের নবীন-বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।‘এসো আলোর মিছিলে, হে নবীন, হে তরুণ দল, ফুটন্ত টগ-বগে শিরা তোমার, এইতো সময় কিছু করার, ভাল কিছু জাতিকে দেবার, নবীন বাড়বে, প্রবীণ হবে সবাই, আদর্শকে পুঁজি করে থাকব মোরা ভাই-ভাই’ এসব শ্লোগানে প্রাণবন্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. মো: সাইফুদ্দিন শাহ্। বিশেষ অতিথি ছিলেন ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও ইউনিভার্সিটি বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও ইউনিভার্সিটি বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সহ-সভাপতি একেএম শাহেদ রেজা শিমুল, ইউনিভার্সিটি বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর সদস্য সচিব ডা. এ.এস.এম. তবারক উল্লাহ চৌধুরী বায়েজীদ, ট্রাস্টিজের সদস্য বদরুল আহসান, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস্ এর প্রাক্তন উপ-উপাচার্য মোহাম্মদ জসীম এবং ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার প্রফেসর তায়বুল হক। ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক শায়লা ইসলাম ও শারমিন বিপাশার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন নবীন-বরন আয়োজক কমিটির আহবায়ক ও সিএসসি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সাঈদ হোসেন পারভেজ।
বিশেষ অতিথিগণ তাদের বক্তব্যে বলেন, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস সম্বন্ধে জ্ঞানার্জনের পাশাপাশি আজকের বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে সততা-নিষ্ঠা আর একাগ্রতা সহকারে জ্ঞান ও প্রযুক্তি নির্ভর উচ্চশিক্ষা অর্জনের আহবান জানান। তারা বলেন, তোমরা মানসম্মত শিক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে মানসম্মত গ্রাজুয়েট হবে। উজ্জ্বল তারকার মত জ্ঞানের আলো ছড়াবে। তোমাদের জ্ঞানের আলো দিয়ে দেশে ও বিদেশে ইউনিভার্সিটির সম্মানকে বৃদ্ধি করবে। তোমাদের মাধ্যমে আলোকিত হব আমরা।
সভাপতির বক্তব্যে ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর শাহ্ বলেন, আমরা তোমাদেরকে এই সোনার বাংলায় সোনার মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। এই জন্য তোমাদেরকে সক্ষম ও সৎ চরিত্রবান হতে হবে। বিদ্যার সাথে বিনয়, শিক্ষার সাথে দীক্ষা, কর্মের সাথে নিষ্ঠা, জীবনের সাথে দেশপ্রেম এবং মানবীয় গুণাবলীর সংমিশ্রণ ঘটাতে পারলে সত্যিকারের আদর্শবান মানুষ হওয়া যায়। তিনি শিক্ষকদেরকে বলেন, আমাদের সন্তানদের মধ্যে যে শক্তি লুকিয়ে আছে তা জাগিয়ে তুলতে হবে। ফেনীর অধিকাংশ মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানেরা তাদের পিতা-মাতার কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয় করে এ ইউনিভার্সিটিতে পদার্পণ করে তাই তাদেরকে পাঠে মনোযোগী হয়ে ভালো ফলাফল করার প্রতি তিনি তাগিদ দেন।
অনুষ্ঠানে গানের দল বিবর্ণের অংশগ্রহণে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।