সময় ডেস্ক : আলোচিত মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যার ঘটনায় বিভিন্ন পক্ষের দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টি তুলে ধরার জেরে ফেনীর ৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেওয়ায় সারাদেশে নিন্দার ঝড় উঠেছে। উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন। নুসরাত হত্যাকান্ডে দায়িত্বে অবহেলার কারণে ফেনী থেকে প্রত্যাহার হয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ সুপার (এসপি) জাহাঙ্গীর আলম সরকার পুরোনো বেশ কয়েকটি মামলায় প্রতিহিংসাবশত ওই সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দিয়েছেন।

রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়ন

ফেনীর ছয় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে পুরোনো মামলায় আসামি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে অভিযোগপত্র জমা দেওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের (আরইউজে) নেতৃবৃন্দ। সোমবার আরইউজে’র সভাপতি কাজী শাহেদ, সহ-সভাপতি শরীফ সুমন, সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রকি, কোষাধ্যক্ষ সরকার দুলাল মাহবুব, নির্বাহী সদস্য মিজানুর রহমান টুকু এবং সামাদ খান এক বিবৃতিতে তাদের উদ্বেগের বিষয়টি প্রকাশ করেন।

বিবৃতিতে আরইউজে নেতৃবৃন্দ বলেন, ফেনীর সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) কর্মস্থল ত্যাগ করার আগে আক্রোশের বশবর্তী হয়ে এ ধরনের কাজ করেছেন। এ ধরনের ঘটনা স্বাধীন সাংবাদিকতার পথকে রুদ্ধ করবে। এরফলে গণমাধ্যম কর্মীরা হয়রানির শিকার হবেন। আমরা অবিলম্বে অভিযোগপত্র থেকে ওই ছয় সাংবাদিকের নাম প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় রাজশাহীর গণমাধ্যমকর্মীরা এ ধরনের অপতৎপরতার বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করতে বাধ্য হবেন।

একইসঙ্গে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহ-সভাপতি মামুন-অর-রশিদ, সদস্য আনু মোস্তফা ও জাবীদ অপু মামলার ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ এবং নিন্দা প্রকাশ করেছেন।

বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটি

নুসরাত জাহান রাফি হত্যার ঘটনায় বিভিন্ন পক্ষের দায়িত্বে অবহেলার বিষয়টি তুলে ধরার জেরে ফেনীর ছয় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটি (বিআরইউ)। এর নিন্দায় একটি বিবৃতি দিয়েছেন বিআরইউর সভাপতি নজরুল বিশ্বাস ও সম্পাদক বাপ্পি মজুমদারসহ সদস্যরা। বৃহস্পতিবার দেওয়া ওই বিবৃতিতে বিআরইউ নেতারা অবিলম্বে চার্জশিট থেকে সাংবাদিকদের নাম প্রত্যাহার ও ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। এদিকে এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বরিশালের সাংবাদিক নেতারা। তারা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন।

সাংবাদিক নেতারা বলেন, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে জানা গেছে, আলোচিত নুসরাত হত্যার ঘটনার রহস্য উদঘাটনে সক্রিয় ভূমিকা রাখায় ফেনীর সাংবাদিকরা প্রত্যাহার হয়ে যাওয়া পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম সরকারের রোষানলে পড়েছেন। কোনো সূত্র ছাড়াই কয়েকজন সাংবাদিককে হঠাৎ করে মামলায় অন্তর্ভূক্ত করার বিষয়টি নিন্দনীয়।

বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক মিথুন সাহা গণমাধ্যমকে বলেন, ফেনীর এ ঘটনা আসলেই নিন্দনীয়। সাংবাদিকদের এভাবে মামলায় জড়ানোর বিষয়টি সাংবাদিক সমাজে উদ্বেগের সৃষ্টি করেছে। আমরা সর্বোচ্চ মহলে দাবি জানাচ্ছি, মামলাগুলো থেকে ফেনীর সাংবাদিকদের অব্যাহতি দেওয়া হোক।  আর এ ঘটনার মধ্য দিয়ে কেউ সমাজ ও রাষ্ট্রকে কলুষিত করতে চেয়েছিলো কি-না, তাও খতিয়ে দেখার দাবি জানাই।

ইউনিটির সভাপতি নজরুল বিশ্বাস বলেন, আাসলে কতিপয় পুলিশের যে বিতর্কিত কর্মকান্ড, যে অপকর্ম-অপরাধ, তা ঢাকতেই ফেনীর সাংবাদিকদের বিভিন্ন মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ ঘটনার প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ করা উচিত।

বরিশাল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক স্বপন খন্দকার বলেন, ফেনীতে সাংবাদিকদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘটনা পুরোপুরি নিন্দনীয়। এটা স্বাধীন সাংবাদিকতার পেশার প্রতি আক্রমণ বা স্বাধীনভাবে মতপ্রকাশকে ব্যাহত করার অপচেষ্টা। আমরা চাই বিষয়টি সরকার গুরুত্ব সহকারে দেখবে এবং সাংবাদিকদের এ থেকে মুক্তি দেবে।

শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন বলেন, অনৈতিকভাবে সাংবাদিকদের মামলায় আসামি করা অবশ্যই অপরাধ। যেহেতু পুলিশ সুপার যাওয়ার আগে এটা করেছেন, অবশ্যই তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ আরও অনেকে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত। তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। এ ঘটনা থেকে আমরা পরিত্রাণ চাই। পাশাপাশি বরগুনায় আলোচিত রিফাত হত্যাকান্ডের যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেদিকেও সবার খেয়াল রাখা উচিত।

খুলনা প্রেস ক্লাব

সাবেক পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম সরকার কর্তৃক ৯টি পুরনো মামলায় ফাঁসিয়ে তাদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এস এম হাবিব এবং সাধারণ সম্পাদক মো. সাহেব আলীসহ কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যরা। বুধবার রাতে দেওয়া বিবৃতিতে উল্লেখিত ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে ওইসব মামলা প্রত্যাহার এবং সংশ্লিষ্ট পুলিশ সুপারের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানানো হয়। একই সঙ্গে নেতারা সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

ফেনীর সোনাগাজীর মাদরাসাছাত্রী নুসরাত হত্যা মামলাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার ঘৃণ্য তৎপরতা ফেনীর সাহসী সাংবাদিকরা ফাঁস করে দেওয়ায় পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম সরকার ফেনী ছাড়ার আগে স্থানীয় ছয়জন সাংবাদিককে পুরনো বানোয়াট মামলায় জড়িয়ে চার্জশিট দিয়ে গেছেন। এসব সাংবাদিকের ফেনীর কোনো থানায় এর আগে সাধারণ ডায়েরিও ছিল না।

antalya escort bursa escort adana escort mersin escort mugla escort samsun escort konya escort