অনলাইন ডেস্ক নিউজ

ফেনী শহরের শহীদ মেজর সালাহউদ্দিন মোড় এলাকায় এসিআই ওষুধ কোম্পানীর ডিপোতে শনিবার রাতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংগঠিত ঘটেছে। ডাকাতরা আলমিরার লকার ভেঙ্গে ২৮ লাখ ৯১ হাজার ৬শ ৫০টাকা লুট করে নিয়ে যায়। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কোম্পানীর ডিপোর দুইজন নৈশপ্রহরীকে আটক করেছে। এ ঘটনায় ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
পুলিশ ও ক্ষতিগ্রস্ত সূত্র জানায়, ওইদিন রাত আনুমানিক ৩টার দিকে ১০-১২ জন মুখোশধারী সশস্ত্র ডাকাত শহরের শহীদ মেজর সালাউদ্দিন মমতাজ বীর উত্তম উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে খোন্দকার ভিলায় ২য়/৩য় তলায় এসিআই ওষুধ কোম্পানীর ডিপোতে হানা দেয়। ডাকাতরা ডিপোর পাহারায় নিয়োজিত নৈশপ্রহরী কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার মো: রাজু মিয়ার ছেলে সাইফুল (৪০) ও শহরের বারাহীপুর এলাকার মফিজ কমিশনার বাড়ীর মমতাজ মিয়ার ছেলে সাহাব উদ্দিনের (৪২) হাত-পা ও মুখ বেঁধে বাথরুম আটক করে রাখে। ডাকাতদল কৌশলে সিসি ক্যামেরা ভেঙ্গে ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলার ৪ টি দরজার তালা খুলে ফেলে। ভিতরে আরো দুটি কলাপসিবল গেটের তালা ভেঙ্গে লকার ভেঙ্গে নগদ ২৮ লাখ ৯১ হাজার ৬শ ৫০টাকা লুট করে নিয়ে যায়। ভোরে খবর পেয়ে বাড়ীর মালিক আবদুল কাদের ডিপো ইনচার্জ নবীননগর থানার রতনপুর গ্রামের কাজি আবদুল মজিদের ছেলে কাজি আবদুর রহমানকে ফোন করেন। তিনি ডিপো ক্যাশিয়ার রাজশাহী জেলার মো: আবদুল হালিমের ছেলে মো: সরোয়ার জাহানকে নিয়ে ছুটে আসেন। ডাকাতির বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে তিনি ফেনী মডেল থানা পুলিশকে জানায়। একপর্যায়ে ফেনী মডেল থানার ওসি মো: রাশেদ খান চৌধুরী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ঘটনায় রবিবার দুপুরে কোম্পানীর ডিপো ইনচার্জ কাজী আবদুর রহমান বাদী হয়ে ১০-১২ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মাহবুবুর রহমান জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই নৈশপ্রহরিকে আটক করা হয়েছে।
ফেনী মডেল থানার ওসি মো. রাশেদ খান চৌধুরী ডাকাতির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, লুণ্ঠিত টাকা উদ্ধারে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।