অথার নাম

সোনাগাজীতে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ছাত্রলীগের বিবধমান দু’গ্রুপের বিরোধ তুঙ্গে উঠেছে। সোমবার দুপুরে পৌর শহরের জিরো পয়েন্টে আওয়ামীলীগ কার্যালয়ের সামনে সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার হোসেন খন্দকার গ্রুপের হামলায় সভাপতি আবদুল মোতালেব চৌধুরী রবিন আহত হয়েছে। অবস্থা আশংকাজনক দেখে তাকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। অবশ্য উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার হোসেন খন্দকার ঘটনায় তার সম্পৃক্ততার বিষয়টি অস্বীকার করেন।
পুলিশ ও দলীয় সূত্রে জানা যায়, ওইদিন দুপুরে যুক্তরাজ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি অবমাননকারিদের গ্রেফতার ও সাজাপ্রাপ্ত তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে কারাগারে প্রেরণের দাবীতে সোনাগাজী পৌর শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে উপজেলা ছাত্রলীগ। পরবর্তীতে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুল মোতালেব চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার হোসেন খন্দকার সহ সংগঠনটির নেতারা উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে অবস্থান করে। এদিকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সোনাগাজী সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক টুটুল পাটোয়ারি পূর্ব বিরোধের জের ধরে বক্তারমুন্সী ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসার আহবায়ক ইসমাইল মিয়াজীকে মারধর করে। খবর পেয়ে নেতাদের হস্তক্ষেপে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এর কিছুক্ষন পর উপজেলা সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার হোসেন খন্দকারের নেতৃত্বে ফের হামলা চালায় টুটুল পাটোয়ারি সহ কয়েকজন। তাদের হামলায় উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুল মোতালেব চৌধুরী রবিন সহ অন্তত ১০ জন আহত হয়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আজিজুল হক হিরন উভয়পক্ষকে নিবৃত্ত করতে চেষ্টা চালান। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে অবস্থা গুরুতর দেখে রবিনকে ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। একপর্যায়ে তাকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। অপর আহতদের মধ্যে ছাত্রলীগ কর্মী শাহীন আলম, শরিফুল হক রিজভী, শাহাদাত হোসেন, ইসমাইল মিয়াজীর নাম জানা গেছে। ঘটনার পর পৌর শহরে উত্তেজনা ও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এদিকে খবর পেয়ে জেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ রবিনকে দেখতে ফেনী আধুনিক সদর হাসপাতালে ছুটে যায়।
উপজেলার মঙ্গলকান্দি ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি এমরান হোসেন জানান, ছাত্রলীগ সভাপতি রবিন চৌধুরী মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে।
উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ইফতেখার হোসেন খন্দকার অভিযোগ অস্বীকার করে ফেনীর সময়কে জানান, ব্যক্তিগত বিরোধের জের ধরে কয়েকজন যুবক রবিনের উপর হামলা চালিয়েছে। ভিডিও ফুটেজ দেখে হামলাকারিদের শনাক্ত করা হবে।
সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মো: মোয়াজ্জেম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভিডিও ফুটেজ দেখে হামলাকারিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।