স্টাফ রিপোর্টার : সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্সিং ভবনে গতকাল সোমবার সকালে দুইটি বাসায় চুরির সংগঠিত হয়েছে। এসময় দুইটি বাসা থেকে অজ্ঞাত চোরেরা স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ ৯ লাখ টাকার মালামাল নিয়ে যায়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গতকাল সকাল ১০টা-দুপুর সাড়ে ১২টার মধ্যে যে কোন সময় হাসপাতালের নার্সিং ভবনের দ্বিতীয় তলায় জ্যেষ্ঠ সেবিকা (নার্স) দেলোয়ারা বেগম ও একই ভবনের তৃতীয় তলায় হাসপাতালের হারবাল সহকারী নাছিমা আক্তারের বাসার দরজার তালা কেটে ভেতরে ঢুকে অজ্ঞানামা চোরের দল।

জ্যেষ্ঠ সেবিকা (নার্স) দেলোয়ারা বেগম জানান, সকাল সাড়ে ৯টায় তিনি বাসায় তালা তাগিয়ে প্রতিদিনের ন্যায় কর্মস্থলে (হাসপাতালে) চলে যান। দুপুরে বাসায় এসে দেখেন দরজা খোলা, ভেতরে জিনিসপত্র সব এলোমেলো এবং আলমিরা গুলোর দরজা খোলা রয়েছে। তিনি দাবী করেন, অজ্ঞাতনামা চোরেরা তার বাসার তিনটি আলমিরার তালা ভেঙ্গে সাত ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ ৫ লাখ ২৭ হাজার টাকা, একটি মোবাইল ফোনসহ প্রায় আটলাখ টাকার মালামাল নিয়ে গেছে।

হাসপাতালের হারবাল সহকারী নাছিমা আক্তার দাবি করেন, একই কায়দায় চোরের দল তার বাসায় ঢুকে দুইটি আলমিরার তালা ভেঙ্গে দুই ভরি স্বর্ণালংকার, নগদে সাড়ে ৪ হাজার টাকাসহ একলাখ টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে।

খবর পেয়ে সোনাগাজী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সুজন হালদারের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. নুরুল আলম বলেন, তিনি বিষয়টি শুনেছেন। তিনি ঢাকায় প্রশিক্ষণে থাকায় মুঠোফোনে তার কর্মচারীদেরকে থানায় মামলা করার জন্য বলেছেন।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মো. মোয়াজ্জেম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। চোরদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।